প্রেস বিজ্ঞপ্তি ২১-০২-২০১৭

সম্প্রতি পত্র-পত্রিকায় ফরমালিনযুক্ত মাছ রাজ্যে পাওয়া যাচ্ছে বলে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। এই সংবাদ সঠিক হলে এটি নিঃসন্দেহে আমাদের রাজ্যের মানুষের স্বাস্হ্যের পক্ষে ঝুঁকিপূর্ণ, এই বিষয়টিকে বিবেচনায় রেখে যথোপযুক্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। স্বাস্হ্য ও পরিবার কল্যাণ দপ্তরের পক্ষ থেকে এইক্ষেত্রে ফুড সেফটি অ্যান্ড স্ট্যান্ডার্ড অ্যাক্ট, ২০০৬ অনুসারে বিভিন্ন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

১) পশ্চিম জেলা এবং আগরতলা পুর নিগমের ফুড সেফটি অফিসার এবং এক্ষেত্রে দায়িত্বপ্রাপ্ত আধিকারিক নিয়মিতভাবে পরিদর্শন করে ফুড সেফটি অ্যান্ড স্ট্যান্ডার্ড অ্যাক্ট, ২০০৬ এর ৪৭ নম্বর এবং ৪১ নম্বর ধারা অনুসারে বাজার থেকে আমদানিকৃত মাছের নমুনা সংগ্রহ করছেন।

২) সংগৃহীত নমুনা ফুড অ্যানালিস্টের কাছে পাঠানো হচ্ছে, যিনি প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর দায়িত্বপ্রাপ্ত আধিকারিকের কাছে রিপোর্ট পেশ করছেন।

৩) ফুড সেফটি অফিসার উপরে উল্লেখিত আইনের ৩৮ নম্বর ধারা অনুসারে নমুনা বাজেয়াপ্ত করা সহ আইন অনুসারে ব্যবস্হা গ্রহণ করবেন।

৪) কোনও ক্রেতা যদি কোনও খাদ্যবস্তুর নমুনা পরীক্ষা করতে চান তাহলে সেই সংগৃহীত নমুনা এফ এস এস আই অ্যাক্টের ৪০ নম্বর ধারা অনুসারে ফুড টেস্টিং ল্যাবরেটরির কর্তৃক নির্ধারিত মূল্য জমা করে সেই সুযোগ নেওয়ার বিধান রয়েছে।